মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৮ নভেম্বর ২০২১

কার্টোগ্রাফিক পরিসেবা


গ্রীক শব্দ চার্টস এর অর্থ হল প্যাপিরাস/কাগজ/মানচিত্র এবং গ্রাফিন মানে লেখা। আক্ষরিকভাবে কার্টোগ্রাফি মানে মানচিত্র আঁকা। ব্রিটানিকার মতে "কার্টোগ্রাফি, একটি ভৌগোলিক এলাকা গ্রাফিক্যালি প্রতিনিধিত্ব করার শিল্প এবং বিজ্ঞান, সাধারণত সমতল পৃষ্ঠে যেমন একটি মানচিত্র বা চার্ট। এটি একটি ভৌগোলিক এলাকার প্রতিনিধিত্বের উপর রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক, বা অন্যান্য অ -ভৌগলিক বিভাজনগুলির সুপারিপোজিশনকে অন্তর্ভুক্ত করতে পারে।

 

খুব প্রাচীনকাল থেকে, যুক্তিসঙ্গত আকারের সমতলে পৃথিবী পাওয়া একটি বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। সুতরাং মানচিত্র প্রবর্তনের মাধ্যমে স্বপ্ন সত্যে পরিণত হয়। আধুনিক যুগে আরও সঠিক এবং সর্বাধিক তথ্যপূর্ণ মানচিত্র প্রস্তুত করাও গবেষণার বিষয়। কার্টোগ্রাফি বিজ্ঞানের এই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি শাখা । শাস্ত্রীয় অ্যানালগ পদ্ধতিতে ম্যাপিংয়ের পদ্ধতি ছিল খুবই কঠিন, সময়সাপেক্ষ এবং ব্যয়বহুল। অন্যদিকে এই ধরণের মানচিত্র প্রয়োজনীয় নির্ভুলতা এবং উৎপাদন  করতে খুব বেশি সময় নেয় না। এই কারণে, তুলনামূলকভাবে কম সময়ে মানচিত্র প্রস্তুত করা যায় । বর্তমানে  কম্পিউটার এর সাহায্যে দ্রুত এবং নির্ভুল ভাবে মানচিত্র প্রস্তুত করা হচ্ছে এখন একটি দিনের মানচিত্র আধুনিক সভ্যতার প্রায় সব সেক্টরে ব্যবহৃত হচ্ছে। দুই দশকেরও বেশি আগে বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর (SOB) ডিজিটাল ম্যাপিং শুরু করেছিল। সেই ব্যবস্থায় আমরা আমাদের পূর্ববর্তী এনালগ মানচিত্র থেকে বিশাল ক্ষেত্র জরিপ তথ্য সহ মানচিত্র তৈরি করে আসছি। সুতরাং এনালগ ডেটা উত্সের উপর আমাদের নির্ভরতার কারণে ম্যাপিং সিস্টেমটি সম্পূর্ণ ডিজিটাল ছিল না এবং আমরা ডিজিটাল ম্যাপিংয়ের সমস্ত সুবিধা পেতে পারিনি। বিভিন্ন সফল প্রকল্পের মাধ্যমে আমরা ম্যাপিংয়ের সর্বশেষ প্রযুক্তির সাথে পরিচিত হয়েছি এবং প্রধানত ডিজিটাল স্টেরিও চিত্র থেকে মানচিত্র প্রস্তুত করার ক্ষমতা অর্জন করেছি। সুতরাং, একটি সুনির্দিষ্ট জিআইএস ডাটাবেজ থেকে যথাযথ এক্সটেনশান সহ জনপ্রিয় ম্যাপিং সফটওয়্যারের সর্বশেষ সংস্করণ ব্যবহার করে মানচিত্র প্রস্তুত করা হচ্ছে যা স্টিরিও চিত্র এবং ক্ষেত্র জরিপকৃত তথ্য থেকে প্রস্তুত। সীমিত স্থান/কাগজের মধ্যে সর্বাধিক সংখ্যক বৈশিষ্ট্যের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষণ এবং traditional তিহ্যগত ম্যাপিং সংস্কৃতির উপর ভিত্তি করে সিম্বোলজি এবং সাধারণীকরণের জন্য সোবের নিজস্ব কার্টোগ্রাফিক স্পেসিফিকেশন রয়েছে। সুতরাং, এই সংস্থা থেকে উত্পাদিত মানচিত্র তথ্যপূর্ণ, নির্ভুল এবং পাঠযোগ্য।

 

বাংলাদেশের জরিপে তিনটি কার্টোগ্রাফিক ইউনিট রয়েছে যা কার্টোগ্রাফিক মানচিত্র তৈরি করে। এগুলি হল: ১ নং কার্টোগ্রাফিক অফিস, ২ নং কার্টোগ্রাফিক অফিস এবং ডিজিটাল কার্টোগ্রাফিক ইউনিট। কার্টোগ্রাফিক অফিসগুলি বিভিন্ন স্কেলে বিভিন্ন ধরণের মানচিত্র তৈরি করে। যেমন: টপোগ্রাফিক ম্যাপ, পলিটিকাল ম্যাপ, থিম্যাটিক ম্যাপ,  চার্ট ইত্যাদি। নিয়মিত মানচিত্র উত্পাদন ছাড়াও, কার্টোগ্রাফিক অফিসগুলি অন্যান্য সরকারী/আধা-সরকারী/বেসরকারি সংস্থার অনুরোধ/চাহিদা সহ টপোগ্রাফিক এবং বিষয়ভিত্তিক মানচিত্র তৈরি করতে পারে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যবহারকারীদের/ক্লায়েন্টের চাহিদা পূরণ করতে পারে।

 

 

 কার্টোগ্রাফি অফিস কর্তৃক প্রনয়ন ক্রীত মানচিত্র:

 

১।  প্রধান শহরগুলির জন্য 1: 5,000 স্কেলের টপোগ্রাফিক মানচিত্র (বরিশাল, চট্টগ্রাম, ঢাকা, খুলনা, রাজশাহী এবং সিলেট)

২। 1: 25,000 স্কেলের টপোগ্রাফিক মানচিত্র (পুরো বাংলাদেশের জন্য মোট 980 ম্যাপ শিট)

৩। টপোগ্রাফিক মানচিত্র: 50,000 স্কেল শীট (সমগ্র বাংলাদেশের জন্য মোট 257 ম্যাপ শিট)

৪।  টপোগ্রাফিক মানচিত্র: 250,000 স্কেল শীট (সমগ্র বাংলাদেশের জন্য মোট 27 টি ম্যাপ শিট)

৫। টপোগ্রাফিক মানচিত্র: 500,000 স্কেল শীট (সমগ্র বাংলাদেশের জন্য মোট 6 টি ম্যাপ শিট)

৬।  টপোগ্রাফিক মানচিত্র: 1,000,000 স্কেল শীট (সমগ্র বাংলাদেশের জন্য মোট 4 টি ম্যাপ শিট)

৭।  বাংলাদেশের মানচিত্র 1: 10,00,000 স্কেল (বাংলা এবং ইংরেজি)

৮।  বিভাগীয় মানচিত্র (সব বিভাগের জন্য)

৯।  জেলা মানচিত্র (সব জেলা)

১০।  উপজেলা মানচিত্র (প্রক্রিয়াধীন)

১১।  বাংলাদেশের উপকূলীয় মানচিত্র 1: 10,000 স্কেল

১২।  প্রাচীন স্মৃতিস্তম্ভের মানচিত্র

১৩।  সিটি গাইড ম্যাপ

১৪।  বিষয়ভিত্তিক মানচিত্র

১৫। BAF চার্ট ইত্যাদি।

 

 

 


Share with :

Facebook Facebook