মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৭ জানুয়ারি ২০২১

ফটোগ্রামেট্রিক পরিসেবা

 

 

ফটোগ্রামেট্রি এবং ডিজিটাল ফটোগ্রামেট্রি সংক্রান্ত কার্যক্রম

 

 

বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর ১৯৬৭ সালে প্রতিষ্ঠিত, ন্যাশনাল ম্যাপিং অর্গানাইজেশন (এনএমও) হিসাবে এর পূর্বপুরুষদের কাছ থেকে মানচিত্র তৈরির প্রযুক্তি অর্জন করে। প্লেন টেবিল জরিপ দীর্ঘদিন ধরে মাঠ থেকে ডেটা সংগ্রহের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। বিমানের উদ্ভাবন, বৃহৎ ফর্ম্যাট এ্যারিয়াল ক্যামেরা এবং ফটোগ্রামেট্রিক সরঞ্জামগুলির মানচিত্র তৈরির ব্যবস্থায় একটি বৈপ্লবিক পরিবর্তন তৈরি হয় । বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর ১৯৬০ সাল থেকে ম্যাপিংয়ের উদ্দেশ্যে ফটোগ্রামেট্রি চালু করে। Wild A7, Wild A8, Wild B8 এর মতো অ্যানালগ যন্ত্রগুলি এ্যারিয়াল ট্রাইঙ্গুলেশন এবং স্টেরিও প্লটিং করার জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল। যদিও প্রক্রিয়াটি ধীর ছিল তবে এটি প্রচলিত প্লেন টেবিল জরিপ থেকে আরও ভাল নির্ভুল।  আধুনিক কম্পিউটার হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যার এর আবির্ভাবে ফটোগ্রামেট্রিক ম্যাপিং সিস্টেম অত্যন্ত উপকৃত হয়েছে। বিশ্লেষণী সিস্টেমে না গিয়ে এসওবি ১৯৯৭ সালে সীমিত সংখ্যক  হার্ডওয়্যার এবং সকেট সেট ফটোগ্রামেট্রিক সফটওয়্যার সহ ডিজিটাল ম্যাপিং সিস্টেম এর কার্যক্রম চালু করে।

 

২০০১ সালে জাপান সরকার ঢাকা মহানগর অঞ্চলে ১: ৫০০০ স্কেলের ডিজিটাল ম্যাপিং প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়ে ডিজিটাল ফটোগ্রমেট্রি ম্যাপিং প্রযুক্তিতে এসওবি সদস্যদের দক্ষতা বাড়াতে সহায়তা করে। সেই সময় , স্ক্যান করা এ্যারিয়াল ছবিগুলি স্টেরিও প্লটিং এর জন্য ব্যবহৃত হত।

 

আস্তে আস্তে এসওবি উপলব্ধি করে যে ডিজিটাল ফটোগ্রামমেট্রিক সিস্টেমটি মূল ম্যাপিং সিস্টেম যা অর্থ, জনশক্তি এবং সময় সাশ্রয় করতে পারে এবং একই সাথে অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য সঠিক মানচিত্র তৈরি করতে পারে এবং উন্নয়ন কৌশল সম্পর্কিত পরিকল্পনা তৈরিতে সহায়তা করতে পারে। এখন, ডিজিটাল মানচিত্রগুলি বাংলাদেশের অবকাঠামো পরিকল্পনা এবং উন্নয়নের জন্য মূল ভূমিকা পালন করে।

 

এসওবি, জিওবির অনুমোদনে "ডিজিটাল ম্যাপিং সিস্টেম অব সার্ভে অব বাংলাদেশে (আইডিএমএস)" শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায় করে যাতে ডিজিটাল এ্যারিয়াল ফটো এবং স্যাটেলাইট ইমেজ ব্যবহার করে ফটোগ্রামেট্রিক পদ্ধতিতে সমগ্র বাংলাদেশের ১:২৫০০০ স্কেলের ডিজিটাল টপোগ্রাফিক মানচিত্র এবং ৫টি বিভাগীয় শহরের ১:৫০০০ স্কেলের ডিজিটাল টপোগ্রাফিক মানচিত্র তৈরি করে।

 

পাঁচটি বিভাগীয় শহরে ১:৫০০০ স্কেলের ডিজিটাল টপোগ্রাফিক মানচিত্র  প্রস্তুতের জন্য ব্যবহৃত স্থানিক রেজোলিউশন ২৫ সেঃমিঃ জিএসডি, রেডিওমেট্রিক রেজোলিউশন ৮ বিট, বর্ণালী রেজোলিউশন ৪ টি ব্যান্ড (আর, জি, বি, এনআইআর), অধিগ্রহণের বছর ২০১০-১১খ্রিঃ, পিক্সেল আকার ৬ মাইক্রন ডিজিটাল এ্যারিয়াল চিত্র নেওয়া হয়। এছাড়াও, সীমান্ত ব্যতীত সমগ্র বাংলাদেশের ১:২৫০০০  স্কেলের ডিজিটাল টপোগ্রাফিক মানচিত্র  প্রস্তুতের জন্য ব্যবহৃত স্থানিক রেজোলিউশন ৫০ সেমি জিএসডি, রেডিওমেট্রিক রেজোলিউশন ৮ বিট, বর্ণালী রেজোলিউশন ৪ টি ব্যান্ড (আর, জি, বি, এনআইআর), অধিগ্রহণের বছর ২০১০-১১খ্রিঃ , পিক্সেল আকার ৬ মাইক্রন ডিজিটাল এ্যারিয়াল চিত্র নেওয়া হয়। ডিজিটাল ফটোগ্রামেট্রি, বিশেষত, এ্যারিয়াল ট্রাইঙ্গুলেশন এবং ডিজিটাল প্লটিং ডিজিটাল ম্যাপিংয়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মূল কাজ।

 

 

 

বাংলাদেশের এ্যারিয়াল ফটোগ্রাফির কালক্রমানুসারী ইতিহাস

ক্রমিক

বছর

স্কেল

প্রতিষ্ঠানের নাম

এরিয়া

১৯৭৪-৭৫

১:৩০,০০০

ক্যাপিটাল এ্যায়ার সার্ভে লিমিটেড, কানাডা

সারা দেশে

১৯৭৭

১:৫,০০০

বাংলাদেশ বিমানবাহিনী

ঢাকা শহর

১৯৮১-৮২

১:৫০,০০০

১:৩০,০০০

১:১৫,০০০

ক্যাপিটাল এ্যায়ার সার্ভে লিমিটেড, কানাডা

সুন্দরবন এবং চট্টগ্রাম

১৯৮৩-৮৪

১:৫০,০০০

১:১৫,০০০

আইজিএন ফ্রান্স

সারা দেশে

১৯৯০-৯১

১:৫০,০০০

১:৩০,০০০

১:২০,০০০

ফিনম্যাপ ইন্টারন্যাশনাল, ফিনল্যান্ড

উপকূলীয় অঞ্চল, যমুনা ও চারপাশ

১৯৯৫

১:৩০,০০০

১:২০,০০০

ক্যাসকো সংস্থা, অস্ট্রেলিয়া

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, ময়মনসিংহ

১৯৯৮

১:৫০,০০০

ফিনম্যাপ ইন্টারন্যাশনাল, ফিনল্যান্ড

উপকূলবর্তী এলাকা

১৯৯৯-২০০১

১:২৫,০০০

কেভরন প্রাইভেট লিমিটেড অস্ট্রেলিয়া

সারা দেশে

২০০৩

১:২০,০০০

এসওবি / জাইকা / এশিয়া এ্যায়ার সার্ভে

ঢাকা শহর

ক্রমিক

বছর

জিএসডি

প্রতিষ্ঠানের নাম

এরিয়া

২০২০-২১

৫০ সেঃমিঃ জিএসডি

পাসকো ফিনম্যাপ ইন্টারন্যাশনাল

সারা দেশে

 

 

২৫ সেঃমিঃ জিএসডি

পাসকো ফিনম্যাপ ইন্টারন্যাশনাল

চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট শহর

বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তরের স্যাটেলাইট চিত্র সংগ্রহের কালক্রমিক ইতিহাস

১৯৯৫-১৯৯৮

১:৫০,০০০ স্কেল

স্পট, ফ্রান্স

নদীর অঞ্চল নদীর শীট আকারের চিত্রসমূহ

২০১০-১১

২.৫মি: জিএসডি

স্পট, ফ্রান্স

বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক সীমানা বরাবর

২০১৬-১৭

০.৫মি: জিএসডি

স্টেরিওস্কোপিক

ডিজিটাল গ্লোব

বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ নদী বরাবর


 

ফটোগ্রামমেট্রি

 

১৯৬০ সাল থেকে বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর ম্যাপিংয়ের উদ্দেশ্যে ফটোগ্রামেট্রিক পদ্ধতিতে কাজ শুরু করে । ডিজিটাল ফটোগ্রামমেট্রিক সিস্টেমটি মূল ম্যাপিং সিস্টেম যা অর্থ, জনশক্তি এবং সময় সাশ্রয় করতে পারে এবং একই সাথে অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য সঠিক মানচিত্র তৈরি করতে পারে এবং উন্নয়ন কৌশল সম্পর্কিত পরিকল্পনা তৈরিতে সহায়তা করতে পারে। ফটোগ্রামেট্রিক ওয়ার্কস্টেশন সমুহ এ্যারিয়াল ফটো, উপগ্রহ চিত্র এবং ভূখণ্ড জরিপ থেকে ডেটা নিয়ে কাজ । ফটোগ্রামমেট্রিক ওয়ার্কস্টেশন সার্ভারের সাথে সংযুক্ত।

 

ফটোগ্রামমেট্রিক ওয়ার্কস্টেশনরে সংখ্যা :

 

i) এ্যারিয়াল ট্রাইঙ্গুলেশন       - ০৩

ii) স্টেরিও প্লটটিং              - ৬৫

iii) ডিটিএম এবং অর্থোফটো - ২০

 

 

ফটোগ্রামমেট্রিক সফ্টওয়্যার :

 

এ্যারিয়াল ট্রাইঙ্গুলেশন          :  ইনফো ম্যাচ এটি ৫.৩.১ (৩টি)

স্টেরিও প্লটিং (৬৫ টি)          :  সামিট  ইভোলেসন ৬.১ (৩৫টি),

                                    সামিট  ইভোলেসন ৭.২ (২৫টি)

                                    সামিট  ইভোলেসন ৭.৬ (৫টি)

                                    অটোক্যাড ম্যাপ ৩ডি ২০১১ (৪০ টি)

                                    অটোক্যাড ম্যাপ ৩ডি ২০১৬ (২৩টি) এবং

                                    আর্কজিআইএস (৭টি)

                                    ডিটিএম এবং অর্থোফটো (২০টি ) - অ্যাপ্লিকেশন মাস্টার অন্তর্ভুক্ত ৫.৩ এবং ৭.০

                                    ম্যাচ টি ডিএসএম, ডিটিএম সম্পাদনা করণ &

                                    আর্থোমাস্টার

                                    আর্থোভিস্তার অন্তর্ভুক্ত

                                    সিম লাইন সম্পাদনা

                                    এবং এলপিএস সফ্টওয়্যার  সার্ভারের সাথে সংযুক্ত।

 

 

 

ফটোগ্র্যামেট্রিক অফিসের কার্যক্রম সমূহ

 

এ্যারিয়াল ট্রাইঙ্গুলেশন

 ডিজিটাইজেশন এবং সংকলন

 ডিজিটাল সারফেস মডেল তৈরি

 ডিজিটাল ভূখণ্ড মডেল তৈরি

 অর্থোফটো জেনারেশন

 কনট্যুর জেনারেশন

 সমুদ্রপৃষ্ঠের গড় উচ্চতা  থেকে সমগ্র বাংলাদেশে উচ্চতা প্রদান করা হয়

 

 

 

 

স্টেরিও প্লটিং

 

ডিজিটাল সারফেস মডেল (ডিএসএম): ১০ মিটার অন্তর / ২০ মিটার অন্তর

ডিজিটাল টেরিন মডেল (ডিটিএম): ১০ মিটার অন্তর / ২০ মিটার অন্তর

 

 

 

 

 

অর্থোফটো জেনারেশন

 

 

কনট্যুর জেনারেশন

 

 

সমুদ্রপৃষ্ঠের গড় উচ্চতা থেকে সমগ্র বাংলাদেশে উচ্চতা সৃষ্টি