Wellcome to National Portal
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২২

GNSS CORS নেটওয়ার্ক বৃদ্ধিকরণ

 

 

বাংলাদেশের স্থায়ী জিএনএসএস কোর্স নেটওয়ার্ক

 

জিএনএসএস কোর্স হলো গ্লোবাল নেভিগেশন স্যাটেলাইট সিস্টেম কন্টিনিওয়াসলি অপারেটিং রেফারেন্স স্টেশন এর সংক্ষিতরুপ। এটি একটি আধুনিক টেকনোলজি যার সাহায্যে সামগ্রিকভাবে আমিরিকান জিপিএস, রাশিয়ান গ্লোনাস, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের গ্যালিলিও, চায়নার বেইদুসহ অন্যান্য নেভিগেশন স্যাটেলাইট সিস্টেম এর সিগন্যাল সমূহ ব্যবহার করে প্রিসাইজ পজিশনিং, সময় এবং গতি পাওয়া যায়। জিএনএসএস কোর্স নেটওয়ার্ক হচ্ছে প্রিসাইজ পজিশনিং এবং নেভিগেশনের মূল অবকাঠামো। জিএনএসএস কোর্স নেটওয়ার্কের মতো আধুনিক ডিজিটাল প্রযুক্তি প্রিসাইজ পজিশনিং এর মাধ্যমে কার্যকরভাবে পৃথিবীর ভূত্বকের গতিবিধি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ এবং ভবিষ্যতের বিপদের পূর্বাভাস দিতে সক্ষম । জিএনএসএস কোর্স নেটওয়ার্ক স্থাপনের ফলে দ্রুত দুর্যোগ প্রস্তুতি এবং পদক্ষেপ গ্রহনকে সহজতর করার লক্ষ্যে ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার পূর্বাভাস গ্রহনে সাহায্য করে। এটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে জিএনএসএস রেফারেন্স ডেটা এবং সংশোধন ডেটা প্রদান করে রিয়েল টাইমে এবং পোস্ট প্রসেসিং এর মাধ্যমে জিএনএসএস ব্যবহারকারীদের সঠিক অবস্থানের তথ্য প্রদান করে। জিএনএসএস কোর্স নেটওয়ার্ক জিওডেটিক কন্ট্রোল পয়েন্টগুলিকে সুনির্দিষ্টভাবে হালনাগাদ করতে সাহায্য করে এবং টপোগ্রাফিক এবং ক্যাডাস্ট্রাল জরিপ কাজ এবং উন্নয়নমূলক কাজে উল্লেখযোগ্যভাবে অবদান রাখে।

 

স্থায়ী জিএনএসএস স্টেশন

জিএনএসএস নেটওয়ার্ক এডজাস্টমেন্ট

জিএনএসএস কোর্স নেটওয়ার্ক

 

বর্তমানে বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তরের ০৬ (ছয়) টি জিএনএসএস কোর্স স্টেশন রয়েছে । এগুলো ২০১১ সালে জাইকার সহায়তায় ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, রংপুর এবং মৌলভীবাজারে স্থাপন করা হয়। রিয়েল টাইম জিএনএসএস জরিপের জন্য প্রতিটি জিএনএসএস কোর্স-এর বিস্তৃতি ৩০ (ত্রিশ) কিলোমিটার ব্যাসার্ধের মধ্যে রাখা প্রয়োজন। বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর সরকারী, আধা-সরকারি, বেসরকারী সংস্থা এবং একাডেমিক প্রতিষ্ঠানসমূহকে রিয়েল টাইম জিএনএসএস পরিসেবা প্রদান করছে। সমগ্র দেশে চলমান বিশাল উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কারণে রিয়েল টাইম জিএনএসএস  পরিসেবার চাহিদা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু দেশের অন্যান্য এলাকায় জিএনএসএস কোর্স না থাকার কারণে সেসব এলাকার উন্নয়ন কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে এবং সমগ্র দেশকে জিএনএসএস কোর্স এর নেটওয়ার্কের আওতায় আনার জন্য বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর কর্তৃক " জিএনএসএস কোর্স-এর নেটওয়ার্ক পরিধি সম্প্রসারণ এবং টাইডাল ষ্টেশন আধুনিকীকরণ” নামে একটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। প্রকল্পের সামগ্রিক উদ্দেশ্য হল, বাংলাদেশের জিএনএসএস কোর্স নেটওয়ার্ক স্থাপন করা যা মূলত ৭৩ (তেহাত্তর) টি জিএনএসএস কোর্স স্টেশনের জন্য বাংলাদেশের ৭৩ (তেহাত্তর) টি বিভিন্ন স্থানে ডিজিটাল যন্ত্রপাতি ব্যাবহার করে স্টেশন তৈরি করা এবং বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তরে ঢাকায় একটি ডেটা সেন্টার (সার্ভার) স্থাপন করা। এর ফলে বাংলাদেশের যে কোন স্থানে রিয়াল টাইম রিসিভারের মাধ্যমে খুব অল্প সময়ে প্রিসাইজ পজিশনিং এবং নেভিগেশন সম্ভব হবে।

 

 

জিএনএসএস  কোর্স  স্টেশনের  উদ্দেশ্যঃ

 

  • রিয়েল টাইম কিনেমেটিক (আরটিকে) এবং পোস্ট প্রসেসিং জিএনএসএস ব্যবহারকারীদের (বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তর ও  অন্যান্য  সংস্থা সহ সমস্ত ব্যবহারকারী) জন্য রেফারেন্স জিএনএসএস উপাত্ত সরবরাহ করা এবং আরটিকে জিএনএসএস সার্ভিস প্রদান করা।

 

  • বাংলাদেশের টেকটনিক প্লেট এর স্থানচ্যুতি নিরীক্ষণ গবেষণায় জিএনএসএস উপাত্ত সরবরাহ  করা।

 

  • বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ভূমিকম্পের ঝুঁকি নিরুপণ গবেষণায় জিএনএসএস উপাত্ত সরবরাহ  করা।

 

  • সূক্ষ্মভাবে বাংলাদেশের সকল জিওডেটিক কণ্ট্রোল পয়েণ্ট নেটওয়ার্ক আপডেট করা।

 

  • ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপণ করার জন্য বড় দুর্যোগের পর সঠিক স্থানচ্যুতি এবং অবনমন সনাক্ত করা।

 

 

 

 

পরিষেবা সরবরাহের ক্ষেত্রে এই প্রকল্পের উদ্দেশ্যগত প্রভাব সরকারের প্রতি জনগণের আস্থা বাড়াবে। এই প্রকল্প থেকে কিছু প্রত্যাশিত সুবিধা পাওয়া যাবে যা নিম্নরূপ:

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন ব্যবহার করে টপোগ্রাফিক্যাল এবং থিমেটিক ম্যাপ  হালনাগাদ করা সহজ হবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন ব্যবহার করে টেকটোনিক প্লেট মুভমেন্ট মনিটরিং করা যাবে এবং ভূমির অবকাঠামোগত অবস্থান ও পরিবর্তন নির্ণয় করা যাবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর ডিজিটাল ক্যাডাস্ট্রাল ম্যাপ প্রস্তুত করতে পারবে। এর ফলে স্ব স্ব ভূমির মালিকগণ অতি সহজে ভূমির স্থানাংক ব্যবহার করে তাদের জমি চিহ্নিত করতে পারবে। এর ফলে বাংলাদেশের ভূমি ব্যবস্থাপনাতে অভূতপূর্ব উন্নতি সাধিত হবে এবং ভূমি সংক্রান্ত যাবতীয় জটিলতা সমাধান হবে।

 

  • হালনাগাদ তথ্য থেকে জিও ডেটাবেজ প্রস্তুত করা যাবে যার ফলে দ্রুত শিল্পায়ণ ও নগরায়ণ এবং ভূমির পরিবর্তন,নদী ভাঙ্গন রোধ এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলাসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন ব্যবহার করে দেশব্যাপী জিওডটিক কন্ট্রোল পয়েন্ট স্থাপন করা, বিদ্যমান কন্ট্রোল পয়েন্ট হালনাগাদ এবং সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা করা যাবে যা টপোগ্রাফিক্যাল ম্যাপ প্রস্তুত করণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ব্যবহার করে যে কোন স্থানের অবস্থান তাৎক্ষনিক ভাবে বের করা যাবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন ব্যবহার করে গাড়ী নেভিগেশন, সুষ্ঠু ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা করা যাবে যা যানজট নিরসনে বিশেষ ভূমিক পালন করবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ব্যবহার করে জিওডেটিক ডেটাবেজকে আধুনিকীকরণ তথা ITRF 2008 কে ITRF 2014-এ অথবা আরও নূতন ভার্সনে রুপান্তর করা যাবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন ব্যবহার করে স্বল্প সময়ে সঠিকভাবে আন্তর্জাতিক সীমানা নির্ধারণ করা সম্ভব হবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন ব্যবহার করে আধুনিক কৃষি ব্যবস্থাপনা এবং কৃষি যন্ত্রপাতি পরিচালনা করা যাবে। এতে স্বল্প ব্যয় এবং সীমিত লোকবল দিয়ে স্বল্প সময়ে কৃষি কাজ পরিচালনা করা যাবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশনে মেট সেন্সর ব্যবহার করে খুব সহজে আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্যাদি পাওয়া যাবে।

 

  • জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন ব্যবহার করে এয়ারক্রাফট নেভিগেশন, নিরাপদে বিমান উড্ডয়ন ও অবতরনে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা করা সম্ভব হবে।

 

  • মোবাইল ফোনের মত সব জিপিএস এমবেডেড অ্যাপ্লিকেশনগুলি আরও ভালভাবে ব্যবহার করা যাবে।

 

  • স্থল এবং জল উভয় ক্ষেত্রে ফ্লিট ব্যবস্থাপনা এবং নেভিগেশন উন্নয়ন সম্ভব হবে এবং টেলিকম কোম্পানি দ্বারা জিপিএস ডেটার ব্যবহার যেমনঃ যেকোনো মোবাইল ফোনের সুনির্দিষ্ট অবস্থান, টাওয়ার পরিকল্পনা ইত্যাদি সহজ হবে।

 

 

 

সর্বোপরি বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে তথা সামগ্রিক অবকাঠামো উন্নয়নে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে জিএনএসএস কোর্স ষ্টেশন সমুহ অগ্রনী ভুমিকা পালন করতে সহায়ক হবে।

 

 



Share with :

Facebook Facebook